শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪
-4.1 C
Toronto

Latest Posts

হলোকস্টকে খাটো করাকে অপরাধ ঘোষণা কতটা কাজে আসছে?

- Advertisement -
সেন্টার ফর ইসরায়েল অ্যান্ড জুইশ অ্যাফেয়ার্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) শিমন কফলার ফোগেল বলেন, হলোকস্টকে অস্বীকার করাকে অপরাধ ঘোষণা করার জন্য লিবারেল সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে তার সংগঠন

হলোকস্ট অস্বীকার করার বিরুদ্ধে তুলনামূলক নতুন ফৌজাদারি বিধি কার্যকর করার ক্ষেত্রে যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেগুলো দূর করতে লিবারেল সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে কানাডিয়ান ইহুদি সংগঠনগুলো। ইহুদি বিদ্বেষ বেড়ে যাওয়ার মধ্যে এই আহ্বান জানিয়েছে তারা।

সেন্টার ফর ইসরায়েল অ্যান্ড জুইশ অ্যাফেয়ার্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) শিমন কফলার ফোগেল বলেন, হলোকস্টকে অস্বীকার করাকে অপরাধ ঘোষণা করার জন্য লিবারেল সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে তার সংগঠন। ফ্রান্স ও জার্মানিতেও একই ধরনের আইন চালু আছে। কানাডা যা বলে তা করে দেখানোর জন্য এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ, যা সরকার গ্রহণ করতে পারে।

- Advertisement -

ইহুদি বিদ্বেষকে মেনে নিয়ে এবং হলোকস্টকে অস্বীকার বা খাটো করে কোনো ধরনের বিবৃতি দেওয়া নিষিদ্ধ করে ২০২২ সালের বাজেট বাস্তবায়ন বিলে ফৌজদারি বিধির সংশোধন অন্তভুক্ত করেছে লিবারেল সরকার। ব্যক্তিগত কথাবার্তার বাইরে এগুলো পুরোপুরি নিষিদ্ধ।

১৯৩৩ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত নাৎসি জার্মানি ও তার মিত্ররা ইউরোপে ৬০ লাখের বেশি ইহুদিকে পদ্ধতিগতভাবে হত্যা করে। পাশাপাশি অন্যান্য সংখ্যালঘু গ্রুপকেও লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে নাৎসি সরকার।

কানাডার আইনি ব্যবস্থা এর আগে হলোকস্টের অস্বীকারের বিরুদ্ধে অন্যভাবে ব্যবস্থা নিয়েছে। আর্নস্ট জান্ডেল মামলার কথা এক্ষেত্রে বিশেষভাবে উল্লেখ করা যেতে পারে। হলোকস্টে নিহত ইহুদির সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলে প্যাম্ফলেট বিতরণের পর তার বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ আনা হয়। তবে সুপ্রিম কোর্ট ১৯৯২ সালে তাকে দোষী সাব্যস্ত করার রায় বাতিল করে দেয়। মিথ্যা সংবাদ সংক্রান্ত ফৌজদারি কার্যবিধির যে অনুচ্ছেদ সেটিও বাতিল করে দেয়। এটা চার্টারে সুরক্ষিত মত প্রকাশের স্বাধীনতার লঙ্ঘন উল্লেখ করে বাতিল করা হয় বিধানটি।

হলোকস্ট অস্বীকার করে নতুন ফৌজদারি অপরাধ ঘোষণার এক বছর পর এটা কতটা প্রয়োগ হচ্ছে তা জানতে ফেডারেল সরকার ও প্রাদেশিক সরকারের কাছে উপাত্ত চায় দ্য কানাডিয়ান প্রেস। এই বিধানের আওতায় কোনো অভিযোগ বা বিচার সম্পন্ন হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে জানে না ফেডারেল বিচার বিভাগ। ৯ নভেম্বর এক বিবৃতিতে এমনটাই জানিয়েছেন বিভাগের একজন মুখপাত্র।

এ ধরনের কোনো অভিযোগ দায়ের, বিচার বা পুলিশের কাছ থেকে কোনো সুপারিশ পাওয়ার কোনো রেকর্ড নেই বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, কুইবেক, ম্যানিটোবা ও আলবার্টাও। এ ধরনের উপাত্ত এখনো সংকলন করা হয়নি বলে জানিয়েছে অন্টারিও।

একে হতাশাজনক বলে মন্তব্য করেছেন ফ্রেন্ডস অব সিমন ভাইজেন্থাল সেন্টারের পরিচালক ড্যান প্যানেটন।

 

- Advertisement -

Latest Posts

Don't Miss

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.