শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
20.2 C
Toronto

Latest Posts

অন্টারিওর প্রাইভেট ক্লিনিক বিলে যা আছে

- Advertisement -
প্রদেশের অনিস্পন্ন অস্ত্রোপচারের স্তুপ কমানোর অংশ হিসেবে বেসরকারি স্বাস্থ্য ক্লিনিকের ভূমিকা বাড়িয়ে নতুন একটি বিল উত্থাপন করেছে অন্টারিওর সরকার।

প্রদেশের অনিস্পন্ন অস্ত্রোপচারের স্তুপ কমানোর অংশ হিসেবে বেসরকারি স্বাস্থ্য ক্লিনিকের ভূমিকা বাড়িয়ে নতুন একটি বিল উত্থাপন করেছে অন্টারিওর সরকার। ৭০ পৃষ্ঠার ইয়র হেলথ অ্যাক্টে অস্ত্রোপচার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লাইসেন্সপ্রাপ্তির আবেদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে অন্টারিও হেলথ ইন্স্যুরেন্স প্ল্যানের (ওএইচআইপ) মধ্যে কী কী পড়বে এবং সেবার মান নিয়ে রোগী অভিযোগ করলে তখন কী হবে সেসব বিষয়ও তুলে ধরা হয়েছে বিলে।

আরও বেশি সংখ্যক বেসরকারি ক্লিনিককে ওএইচপি-কাভার্ড অস্ত্রোপচার ও ডায়াগনসিসের সুযোগ দেওয়ার মধ্য দিয়ে অপেক্ষমাণ সময় কমিয়ে আনার আশঅ করছে প্রোগ্রেসিভ কনজার্ভেটিভ সরকার। এর মধ্যে রয়েছে ছানি অপসারণ, এমআরআই ও সিটি স্ক্যান। অপেক্ষাকৃত কম জটিল গাইনোকোলজিক্যাল অস্ত্রোপচার এবং সবশেষে হাঁটু ও কোমর প্রতিস্থাপনও রয়েছে এই সেবার মধ্যে। লাভজনক ও অলাভজন উভয় ক্লিনিকেই অস্ত্রোপচার করা হবে।
তিনটি ধাপে এটি বাস্তবায়ন করা হবে। প্রথমেই থাকবে ছানি অস্ত্রোপচার। সরকার বলছে, এর ফলে প্রতি বছর অতিরিক্ত ১৪ হাজার অস্ত্রোপচার সম্ভব হবে। আইনটি পাশ হলে এসব পরিবর্তন স্থায়ী রূপ পাবে।

- Advertisement -

এসব অস্ত্রোপচার ওএইচআইপি কভার করবে। মন্ত্রণালয় বলেছে, এই সেবার জন্য অন্টারিওর কাউকে নিজের পকেট থেকে অর্থ খরচ করতে হবে না। তা সে যেখানেই সম্পাদিত হোক না কেন।

অতিরিক্ত অর্থ খরচ করে দ্রুত অস্ত্রোপচার করা যাবে না। বিমাকৃত সেবার ক্ষেত্রে অর্থের বিনিময়ে দ্রুত সেবাদানের সুযোগ নিষিদ্ধ করা হয়েছে আইনে। কিন্তু বিমার আওতায় পড়ে না এমন সেবা যদি কোনো ক্লিনিক প্রাপ্যতা সাপেক্ষে দ্রুত প্রদান করে সেক্ষেত্রে কী হবে তা নিয়ে অস্পষ্টতা রয়েই গেছে।
কোনো রোগী বাড়তি অর্থ পরিশোধে ব্যর্থ হলে তাকে ফেরত দেওয়ার সুযোগ নেই। আইনে পরিস্কারভাবে বলা হয়েছে, কোনো রোগী অর্থ পরিশোধ না করতে পারলেও বিমার আওতায় পড়ে এমন সেবা থেকে তাকে বঞ্চিত করতে পারবে না ক্লিনিক।

সেবার মান প্রশ্ন থাকলে রোগী ন্যায়পাল তা দেখবেন। কোনো ব্যক্তি যদি ইন্ডিপেন্ডেন্ট হেলথ ফ্যাসিলিটি অ্যাক্ট পরিপালনে ব্যর্থ হয় সেক্ষেত্রে তাকে প্রথমবারের মতো সর্বোচ্চ ৫০ হাজার ডলার জরিমানার মুখে পড়তে হবে। একই ঘটনা দ্বিতীয়বার ঘটলে সেক্ষেত্রে জরিমানার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়াবে এক লাখ ডলার পর্যন্ত। সেই সঙ্গে ১২ মাসের জেলও হতে পারে।

প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রথমবার আইন লঙ্ঘনের জরিমানা সর্বোচ্চ এক লাখ এবং একই অপরাধ দ্বিতীয়বার করলে সেক্ষেত্রে জরিমানা গুনতে হবে ৫ লাখ ডলার।

 

- Advertisement -

Latest Posts

Don't Miss

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.