মঙ্গলবার, জুলাই ৫, ২০২২
24.6 C
Toronto

Latest Posts

দ্বিতীয় বছরের মতো ফেডারেল সরকারের পদক্ষেপের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে সিটি কর্তৃপক্ষকে

- Advertisement -
ফেডারেল অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় মহামারির কারণে ট্রানজিট সংক্রান্ত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে মিউনিসিপালিটিগুলোর জন্য এককালীন ৭৫ কোটি ডলার তহবিলের প্রতিশ্রতি দিয়েছেন

মহামারি সংশ্লিষ্ট আর্থিক প্রভাবে ১৪০ কোটি ডলার ঘাটতি সত্ত্বেও ২০২২ সালের বাজেট অনুমোদন করেছে টরন্টো সিটি কাউন্সিল। এ ঘাটতির কারণে পরিকল্পিত অনেক মূলধনী প্রকল্প ও মেরামত কাজ বাতিল করতে হতে পারে। বাজেট চূড়ান্ত করতে বৃহস্পতিবার কাউন্সিলের বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অন্টারিওর মিউনিসিপালিটিগুলোকে ঘাটতি নিয়ে চলতে নিরুৎসাহিত করা হয়। তাই মহামারির সংশ্লিষ্ট ক্ষতি পুষিয়ে নিতে জরুরি তহবিলের জন্য টানা দ্বিতীয় বছরের মতো ফেডারেল ও প্রাদেশিক সরকারের পদক্ষেপের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে সিটি কর্তৃপক্ষকে। কিন্তু সমস্যা হলো কোনো সরকারই এখন পর্যন্ত এবারের তহবিলের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক প্রতিশ্রুতি দেয়নি। এতে নগরীর আর্থিক পরিস্থিতি নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। তারপরও কাউন্সিল ১ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের পরিচালন বাজেট ও ১০ বছর মেয়াদী ৪ হাজার ৬৫৮ কোটি ডলারের মূলধনী পরিকল্পনা অনুমোদন করেছে।

- Advertisement -

ফেডারেল অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড বৃহস্পতিবার এক ঘোষণায় মহামারির কারণে ট্রানজিট সংক্রান্ত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে মিউনিসিপালিটিগুলোর জন্য এককালীন ৭৫ কোটি ডলার তহবিলের প্রতিশ্রতি দিয়েছেন। তবে এর মধ্য থেকে টরন্টো কি পরিমাণ অর্থ পাবে সেটি এখনও পরিস্কার নয়।

সিটি কর্মকর্তারা এর আগে বলেছিলেন, ২০২২ সালে জরুরি তহবিলের জোগান না দেওয়া হলে ঘাটতি পুষিয়ে নিতে ৩০ কোটি ডলারের পরিকল্পিত মূলধনী প্রকল্প এবং ১০০ কোটি ডলারের মেরামত কাজ বাতিল করতে হতে পারে।
তবে তারা এটাকে এককালীন সমাধান হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, অন্য স্তরের সরকারগুলো মহামারি সংশ্লিষ্ট আর্থিক প্রভাবের কারণে তহবিল জোগান অব্যাহত না রাখলে এর পুনরাবৃত্তি করা সম্ভব হবে না।

টরন্টো মেয়র জন টরি বৃহস্পতিবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী ও অন্য মন্ত্রীদের সঙ্গে একাধিক আলোচনা করেছি এবং আলোচনাগুলো হয়েছে অতি সম্প্রতি। এর একটা ফল পাওয়ার ব্যাপারে আমি সতর্কভাবে আশাবাদী। খুব শিগগিরই আমরা তা শুনতে পাবো বলে আমি মনে করি।

বৈঠকে সিটি কাউন্সিল মূল্যস্ফীতির ভিত্তিতে আবাসন কর ২ দশমিক ৯ শতাংশ বৃদ্ধি অনুমোদন করেছে। টরির মেয়াদকালে এটাই সর্বোচ্চ বৃদ্ধি। সেই সঙ্গে সিটির বিল্ডিং লেভিও ১ দশমিক ৫ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে, যা অনুমোদন হয়েছিল ২০১৯ সালে।

সিটি কর্মীরা বলছেন, সার্বিকভাবে ৪ দশমিক ৪ শতাংশ কর বৃদ্ধির ফলে গড়ে ৬ লাখ ৯৭ হাজার ১৮৫ ডলারের বাড়ির মালিকদের ২০২২ সালে ১৪১ ডলার বাড়তি ব্যয় করতে হবে। বাজেটে ১৩ কোটি ৫০ লাখ ডলারের নতুন বিনিয়োগও অন্তর্ভুক্ত করেছেন কর্মীরা। অতিরিক্ত ৬৩ জন প্যারামেডিক নিয়োগ, টিটিসির সেবা মহামারি-পূর্ব অবস্থায় ফেরানো এবং নগরজুড়ে সাইডওয়াক পরিস্কার করা এর মধ্যে অন্তর্গত।
ঞযরং ধৎঃরপষব ধিং ৎিরঃঃবহ নু ঐবষধষ ঈযড়ফিযঁৎু ধং ঢ়ধৎঃ ড়ভ ঃযব খঔও

- Advertisement -

Latest Posts

Don't Miss

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.