বুধবার, জানুয়ারী ১৯, ২০২২
-1 C
Toronto

Latest Posts

মহামারিতেও বাড়েনি মৃত সন্তান প্রসবের হার

- Advertisement -
কানাডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন

অন্টারিওতে মৃত সন্তান প্রসবের যে হার, তাতে মহামারির কোনো প্রভাব পড়েনি বলে নতুন এক গবেষণায় উঠে এসেছে। মঙ্গলবার কানাডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, গত সাড়ে ১৭ বছরে মৃত ও আগাম সন্তান প্রসবের যে হার, প্রায় একই রকম হার দেখা গেছে মহামারির প্রথম বছরেও।

গবেষণাটি পরিচালনা করেছেন মাউন্ট সিনাই হসপিটাল ও আইসিইএসের গবেষকরা। গবেষণায় অন্টারিওর ১৩ থেকে ৫৯ বছর বয়সী ২৪ লাখ গর্ভবতী মায়ের তথ্য মূল্যায়ন করা হয়েছে। সময়কাল ধরা হয়েছে ২০০২ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। সর্বনি¤œ ৭ দশমিক ৩২ ও সর্বোচ্চ ৮ দশমিক ৫৯ শতাংশ ধরে আগাম সন্তান প্রসবের গড় হার নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ দশমিক ৯৬ শতাংশ। আর মহামারির বছর ধরা হয়েছে ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত। এই সময়ে আগাম সন্তান জন্মের হার পাওয়া গেছে ৭ দশকি ৮৭ শতাংশ।

- Advertisement -

সর্বনি¤œ দশমিক ৪৮ ও সর্বোচ্চ দশমিক ৭ শতাংশ ধরে মৃত সন্তান প্রসবের গড় হার হিসাব করা হয়েছে দশমিক ৫৬ শতাংশ। মহামারির প্রথম বছর মৃত সন্তান প্রসবের হার পাওয়া গেছে দশমিক ৫৩ শতাংশ।

মহামারির মধ্যে মৃত ও আগান সন্তান প্রসবের হারে কোনো পরিবর্তন এসেছে কিনা তা যাচাই করতে মহামারির আগের তিন বছর ও মহামারির এক বছরের মাসিক হারের মধ্যেও তুলনা করেছেন গবেষকরা। তাতেও মহামারির এক বছরে মৃত ও আগাম সন্তান প্রসবের হারে কোনো বৃদ্ধি বা হ্রাস দেখা যায়নি।

শহর ও গ্রামের গর্ভবতী নারীদের তথ্যও বিশ্লেষণ করে দেখেছেন গবেষকরা। তাতেও মৃত ও আগাম সন্তান প্রসবের হার একই রকম পেয়েছেন তারা। তবে শহরের গর্ভবর্তী মায়েদের মধ্যে গ্রামের চেয়ে আগাম সন্তান প্রসবের হার কিছুটা বেশি পাওয়া গেছে। যদিও তা স্বাভাবিক গড়ের মধ্যেই রয়েছে। এছাড়া কোভিডের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি ছিল যে চারটি এলাকা টরন্টো, পিল, ইয়র্ক ও অটোয়া সেগুলোর মধ্যেও আগাম ও মৃত সন্তান প্রসবের হারে তেমন কোনো পার্থক্য ধরা পড়েনি।

- Advertisement -

Latest Posts

Don't Miss

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.