বুধবার, জুন ১২, ২০২৪
18.5 C
Toronto

Latest Posts

কোভিড-১৯ এখনো বিদায় নেয়নি

- Advertisement -
কোভিড-১৯ এর কারণে অসুস্থ্যতা এখর আর বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা নয় বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) শুক্রবার ঘোষণা করলেও এটি এখনো বিদায় নেয়নি বলে জানিয়েছেন কানাডার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাঁ-ইভস ডুকল

কোভিড-১৯ এর কারণে অসুস্থ্যতা এখর আর বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা নয় বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) শুক্রবার ঘোষণা করলেও এটি এখনো বিদায় নেয়নি বলে জানিয়েছেন কানাডার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাঁ-ইভস ডুকল। জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই ঘোষণা করোনাভাইরাস মহামারির প্রতীকী অবসান। এই মহামারিই এক সময় অচিন্তনীয় লকডাউন ও বিশ^ব্যাপী লাখো মানুষের মৃত্যু ডেকে এনেছিল।

ডুকল বলেন, এটা ভালো দিক। তবে কোভিড-১৯ কে অবশ্যই গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে এবং এর দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব আমাদের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার ওপর এখনো বহাল আছে। এটা স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থার অবসান। তাই বলে ঝুঁকির সমাপ্তি নয়। কোভিড-১৯ এখনো আমাদের সঙ্গেই আছে। কোিিভড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ৬০ হাজার কানাডিয়ান প্রাণ হারিয়েছেন। এখনো এতে আক্রান্ত হয়ে লোকজনের মৃত্যু হচ্ছে। যদিও আগের চেয়ে সংখ্যাটি অনেক কম।

- Advertisement -

হেলথ কানাডার কোভিড-১৯ ড্যাশবোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ২ মে পর্যন্ত সর্বশেষ সাতদিনে কানাডায় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মহামারির শুরুর দিকে অর্থাৎ ২০২০ সালের মে মাসের দিকে সাপ্তাহিক মৃত্যু ১ হাজার ৩০০ ছাড়িয়ে গিয়েছিল।
ইউনিভার্সিটি অব আলবার্টার সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. লিনোরা স্যাক্সিঙ্গার বলেন, মহামারির অবসান হয়েছে বলে লোকজনের কাছে যদি বার্তা যায় তাহলে বয়স্কদের ওপর ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হওয়ার যে ঝুঁকি রয়েছে সেটা তারা বিস্মৃত হবে। আরেকটি বিষয় এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে এবং তা হচ্ছে আগাম সতর্কতা অবলম্বন করলে অন্যান্য অসুস্থতা বিশেষ করে গুরুতর অসুস্থতা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ দেখা দেওয়ার পর কানাডা ব্যাপকভিত্তিক কোভিড-১৯০ পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়। কারণ, প্রত্যেককে পরীক্ষা করার যে সক্ষমতা আক্রান্তের সংখ্যা তার চেয়ে অনেক বেশি ছিল। বাড়িতে পরীক্ষার জন্য র‌্যাপিড টেস্ট কিটের প্রাপ্যতার কারণেও স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে তুলনামূলক কম মানুষ কোভিড-১৯ পরীক্ষা করান।
ডুকল বলেন, স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা এখনো পুনরুদ্ধার পর্যায়ে রয়েছে। কারণ, চাপের কারণে বিপুল সংখ্যক স্বাস্থ্যসেবা খাতটি ছেড়ে গেছেন। লং-টার্ম কেয়ারের লক্ষণীয় উন্নতি প্রয়োজন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০২০ সালের ১১ মার্চ করোনাভাইরাসকে বৈশি^ক সংকট হিসেবে ঘোষণা করে। সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রস আধানম জেব্রেয়েসুস শুক্রবার জেনেভায় বলেন, এক বছরের বেশি সময় ধরে মহামারি কমতির দিকে রয়েছে। অধিকাংশ দেশ কোভিড-১৯ এর আগের অবস্থার মতো স্বাভাবিকতায় ফিরেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ^ব্যাপী কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা ৭০ লাখ বলা হলেও এটা ২ কোটির কম হবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

- Advertisement -

Latest Posts

Don't Miss

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.