রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ১২:৫৬ am

ইরাকে কানাডার সৈন্য কমানোর সিদ্ধান্ত বদলে যেতে পারে


ইরাকে কানাডার সৈন্য কমানোর সিদ্ধান্ত বদলে যেতে পারে

ছবি/ন্যাশনাল ডিফেন্স কানাডা

যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর মিত্ররা ইরাকে তাদের উপস্থিতি বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে। এ অবস্থায় দেশটি থেকে সৈন্য কমানোর যে সিদ্ধান্ত তা বদলানোর চাপে পড়তে পারে কানাডা।
ইরাকে ইসলামিক স্টেট ও ইরানের মদদপুষ্ট জঙ্গিদের নিয়ে উদ্বেগে আছে ন্যাটো। ন্যাটোর মহাসচিব জেন্স স্টল্টেনবার্গ মনে করছেন, ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইরাকি বাহিনীকে সহায়তার জন্য মিত্র দেশগুলো আরও বেশি প্রশিক্ষক ও উপদেষ্টা মোতায়েনের প্রস্তাব অনুমোদন করবে।
এ নিয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া দুই দিনের আলোচনায় অন্যদের মধ্যে প্রতিরক্ষামন্ত্রী হারজিৎ সজ্জনও অংশ নেবেন। রুদ্ধদ্বার ওই বৈঠকে অংশ নেওয়া জোটের শরিকরা আফগানিস্তান পরিস্থিতি ছাড়াও চীন ও রাশিয়ার হুমকির বিষয়টি নিয়েও আলোচনা করবেন।
সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে স্টলটেনবার্গ বলেন, পরিস্থিতি অনুযায়ী মিশনটি সম্প্রসারণ করা হবে। ইরাক সরকারের অনুরোধেই এটা করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে আমরা এই নিশ্চয়তা দিতে পারি যে, ইসলামিক স্টেট আর ফিরে আসবে না।
এর ফলে ইরাকে ন্যাটোর চলমান প্রশিক্ষণ মিশনে সৈন্য সংখ্যা নাটকীয়ভাবে বেড়ে যেতে পারে। গত বছর ইরাক থেকে ২০০ সৈন্য প্রত্যাহারের পর নতুন করে সেখানে সৈন্য পাঠানোর চাপে পড়তে পারে কানাডা।
ইরাকে ন্যাটোর বর্তমান মিশনটি শুরু হয় ২০১৮ সালে এবং ইসলামিক স্টেটের মতো জঙ্গি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে দেশটির সেনাবাহিনী যাতে লড়াই করতে পারে সেজন্য তাদেরকে সক্ষম করে তুলতে সেখানে ন্যাটোর ৫০০ সৈন্য মোতায়েন আছে। কানাডিয়ান জেনারেলের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত মিশনটিতে দেশটির সৈন্য সংখ্যা ২০০।
জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগের তথ্যমতে, বর্তমানে মিশনটিতে ১৭ জন কানাডিয়ান সৈন্য রয়েছেন। কমান্ডও ডেনমার্কের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
কেবল ন্যাটো মিশন থেকেই যে কানাডা সৈন্য কমাচ্ছে তা নয়, জানুয়ারিতে পুরো অঞ্চলজুড়েই কানাডার সৈন্য সংখ্যা ছিল ৪০০-এর মতো। কয়েক বছর আগেও সংখ্যাটি ছিল ৮৫০ এর বেশি।
 


Comments