শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ৪:৪৭ am

সরকারের ভ্যাকসিন সংগ্রহ কার্যক্রমে সন্তুষ্ট নয় ৪৪% কানাডিয়ান

সরকারের ভ্যাকসিন সংগ্রহ কার্যক্রমে সন্তুষ্ট নয় ৪৪% কানাডিয়ান

পর্যাপ্ত সংখ্যক ভ্যাকসিন নিশ্চিতকরণে সরকারের কার্যক্রমকে দুর্বল মনে করছে ৪৪ শতাংশ কানাডিয়ান। অ্যাঙ্গাস রিড ইনস্টিটিউটের নতুন এক সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা এ ধারণা পোষণ করেছেন।
ছয় মাস আগে পরিচালিত একই ধরনের সমীক্ষায় এর অর্ধেক কানাডিয়ান ভ্যাকসিন নিয়ে সরকারের কর্মকান্ডে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। মধ্য ডিসেম্বরে পরিচালিত জরিপে অংশগ্রহণকারী মাত্র ২৩ শতাংশ কানাডিয়ান লিবারেল সরকারের ভ্যাকসিন সংগ্রহের কার্যক্রমকে দুর্বল বলে আখ্যায়িত করেছিলেন। সে সময় সরকারের কর্মকা-ে সন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন ৪৭ শতাংশ কানাডিয়ান।
লক্ষমাত্রা অনুযায়ী ফেডারেল সরকারের প্রদেশগুলোকে ভ্যাকসিনের জোগান দেওয়ার সক্ষমতা আছে কিনা তা নিয়ে উদ্বেগ বাড়তে থাকার মধ্যেই শুক্রবার সমীক্ষার এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়।
ফেডারেল সরকারের ভ্যাকসিন বিতরণ কার্যক্রম তদারিকর দায়িত্বে থাকা মেজর জেনারেল ড্যানি ফর্টিন এর আগের দিন বলেন, ফাইজারের কাছ থেকে আগামী দুই সপ্তাহে লক্ষমাত্রার মাত্র এক-পঞ্চমাংশ ভ্যাকসিন পাবে কানাডা। তা সত্ত্বেও মার্চ শেষে কানাডা ৪০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পাবে বলে সে সময় জোর দিয়ে বলেন তিনি।
গত ছয় সপ্তাহে এর বাইরেও ভ্যাকসিন নিয়ে অন্যান্য অসঙ্গতির খবরও পাওয়া গেছে। প্রদেশের ফিজারগুলোতে ঠিক কি পরিমাণ ভ্যাকসিন মজুদ আছে তা নিয়ে সংশয় আছে। কারণ, কত সংখ্যক ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে তা নিয়ে অন্টারিও এরই মধ্যে ভুল তথ্য দিয়েছে। এসবের ফলে ভ্যাকসিন বিতরণের সক্ষমতা নিয়ে ফেডারেল সরকারের ওপর জনআস্থা হ্রাস পাচ্ছে।
অ্যাঙ্গাস রিড ইনস্টিটিউটের নতুন সমীক্ষার ফল বলছে, কানাডা সরকারের ভ্যাকসিন বিতরণের সক্ষমতা আছে বলে মনে করেন ৪৫ শতাংশেরও কম কানাডিয়ান। মধ্য ডিসেম্বরে পরিচালিত সমীক্ষায় যেখানে সরকারের সক্ষমতার প্রতি আস্থা ছিল ৫৮ শতাংশ কানাডিয়ানের।
ফাইজারের কাছ থেকে ভ্যাকসিন পেতে বিলম্বকে সরকারের জন্য বড় ধাক্কা বলে মনে করেন ৩৬ শতাংশ কানাডিয়ান। তবে বয়সভেদে এ হারে হেরফের আছে। ৬৫ বছরের বেশি বয়সীরা একে বড় ধরনের ধাক্কা মনে করলেও এ ধরনের মনোভাব পোষণ করছেন ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সী মাত্র ২৬ শতাংশ কানাডিয়ান।
ভ্যাকসিন ক্রয়ের দায়িত্ব মূলত ফেডারেল লিবারেল সরকারের। কাজটি সরকার সঠিকভাবে করতে পারেনি বলে মনে করেন কনজারভেটিভ দলের ৭১ শতাংশ সমর্থক। সরকারের কার্যক্রমকে ভালো বলেছেন এ দলের মাত্র ১২ শতাংশ সমর্থক। যদিও লিবারেল পার্টির ৫৮ শতাংশ সমর্থকই ভ্যাকসিন ক্রয়ে সরকার ভালো করছে বলে মত দিয়েছেন। নিউ ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে এ কাজে সরকারের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ৪৩ শতাংশ। ভ্যাকসিন ক্রয়ে সরকার দক্ষতার পরিচয় দিতে পারেনি বলে মনে করেন লিবারেল পার্টির মাত্র ২৫ ও নিউ ডেমোক্র্যাটির পার্টির ৩৩ শতাংশ সমর্থক।
মোট জনসংখ্যার ২ শতাংশকে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন দিতে পেরেছে কানাডা। তবে সরকার ভ্যাকসিনের বিতরণ ব্যবস্থাপনাটি যে সঠিকভাবে করতে পারছে, ৪৯ শতাংশই সেটি মনে করেন না। আর সরকারের ভ্যাকসিন বিতরণ ব্যবস্থাপনার প্রতি পুরোপুরি আস্থা আছে ৪৫ শতাংশ কানাডিয়ানের।
যদিও ভ্যাকসিন বিতরণে প্রাদেশিক সরকারের সামর্থ্যরে প্রতি কিছুটা হলে বেশি কানাডিয়ানের আস্থা আছে। নিজ নিজ প্রাদেশিক সরকার ভ্যাকসিন বিতরণের কাজটি দক্ষভাবে সমাধা করতে পারবে বলে মনে করেন ৫১ শতাংশ কানাডিয়ান। প্রদেশভেদে আবার আস্থায় তারতম্য আছে। ভ্যাকসিন বিতরণে প্রাদেশিক সরকারের সামর্থ্য নিয়ে সবচেয়ে কম আস্থাবান আলবার্টার নাগরিকরা। এখানকার মাত্র ৩৫ শতাংশ নাগরিক প্রাদেশিক সরকারের ভ্যাকসিন বিতরণের কাক্সিক্ষত সামর্থ্য আছে বলে মনে করেন। এছাড়া ম্যানিটোবার ৩৯ ও অন্টারিওর ৪৪ শতাংশ নাগরিক তাদের সরকার সঠিকভাবে ভ্যাকসিন বিতরণে সক্ষম বলে বিশ^াস করেন। তবে প্রাদেশিক সরকারের সামর্থ্য নিয়ে সবচেয়ে বেশি আস্থাবান কুইবেকের বাসিন্দারা। প্রদেশটির ৬৩ শতাংশ নাগরিকই মনে করেন, দক্ষভাবে ভ্যাকসিন বিতরণের সব সামর্থ্যই আছে তাদের সরকারের। আটলান্টায় এ হার ৬৯ ও ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় ৫৭ শতাংশ।
ভ্যাকসিন গ্রহণের বিষয়ে কানাডিয়ানদের মনোভাবে খুব একটা হেরফের হয়নি। নতুন সমীক্ষায়ও ৬০ শতাংশ কানাডিয়ান যত দ্রুত সম্ভব ভ্যাকসিন গ্রহণে আগ্রহের কথা ব্যক্ত করেছেন। ১৯ শতাংশ ভ্যাকসিন নিতে চান, তবে রয়েসয়ে। আর ভ্যাকসিন নেওয়ার ব্যাপারে একেবারেই আগ্রহী নন মাত্র ১৪ শতাংশ কানাডিয়ান।
এছাড়া স্বাভাবিকতায় ফিরতে ভ্যাকসিন গ্রহণকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে বিশ^াস করেন সমীক্ষায় অংশ নেওয়া ৫৬ শতাংশ কানাডিয়ান।


Comments