Sat 28th Nov 2020, 2:50 am

কুইবেকের ধর্মনিরপেক্ষ আইন নিয়ে ভিন্নমত

কুইবেকের ধর্মনিরপেক্ষ আইন নিয়ে ভিন্নমত

বাংলামেইল ডটকম ডেস্ক

কুইবেকের ধর্মনিরপেক্ষ আইন ইহুদি, শিখ ও মুসলমানদের মতো সংখ্যালঘুদের বৈষম্যের দিকে ঠেলে দেবে বলে মন্তব্য করেছেন মনোবিজ্ঞানী ড. রিচার্ড বোরহিস। মন্ট্রিয়ল আদালতে নিজের বক্তব্যে তিনি বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে বিভিন্ন শ্রেণিতে ভাগ করার চেষ্টা মানুষের মধ্যে ‘আমাদের ও তাদের’ অনুভূতির জন্ম দেয়, শেষ পর্যন্ত যা সংখ্যালঘুুদের মধ্যে নিরাপত্তাহীনতার বোধ তৈরি করে।
গত মে মাসে আনা বিল ২১ শীর্ষক এ আইনে উচ্চ পর্যায়ের সরকারি চাকরি যেমন শিক্ষক ও বিচারকদের দায়িত্ব পালন অবস্থায় ধর্মের পরিচায়ক যেকোনো কিছু পরিধান নিষেধ করা হয়েছে। কুইবেক বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যাপক (ইমেরিটাস) বোরহিসের মতে, যেসব গোষ্ঠী আগে থেকেই বৈষম্যের শিকার হচ্ছে তাদের বিশেষ করে মুসলিম নারীদের ক্ষেত্রে শ্রেণিকরণের প্রভাবটা হবে মারাত্মক। এর ফলে সংখ্যালঘু গ্রুপের মানুষ নিজেদেরকে সংখ্যাগুরুদের কাছ থেকে আলাদা করে নিতে পারে। এর ফলে শেষ পর্যন্ত সামাজিক সংহতি নষ্ট হবে।
বিল ২১ নিয়ে মামলার বিচারকার্যক্রম মুসলমান ও শিখ শিক্ষকদের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে এ সপ্তাহে শুরু হয়েছে। সাক্ষ্যে ওই শিক্ষকরা বলেন, ধর্মীয় পোশাক পরার কারণে তাদের মনে হয়েছে যে তারা কুইবেক সমাজের বাইরের মানুষ।
বিল ২১ এ কানাডার চার্টার অব রাইটস অ্যান্ড ফ্রিডমসের ৩৩ অনুচ্ছেদ প্রয়োগের সুযোগ রাখা হয়েছে, যা মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনের কারণে আদালতের চ্যালেঞ্জ থেকে আইনটিকে সুরক্ষা দেবে। ধারাটি মোকাবেলায় বাদীপক্ষ চার্টারের ২৮ অনুচ্ছেদে বর্ণিত লৈঙ্গিক সাম্যের নিশ্চয়তার বিষয়টি সামনে আনছেন।
তবে কুইবেক সরকার জানিয়ে দিয়েছে, ধর্মনিরপেক্ষ আইনটি রক্ষায় আদালত মোকাবেলার জন্য তারা প্রস্তুত। প্রিমিয়ার ফ্রাঁসোয়া লেগু এর আগে আইনটির পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে বলেছিলেন, প্রদেশের অধিকাংশ নাগরিকের এর প্রতি সমর্থন আছে।

Comments