শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১, ১১:৩৪ pm

কানাডার গ্লোবাল নিউজে প্রয়াত শরীফ সালামের কন্যার স্মৃতিচারণ

কানাডার গ্লোবাল নিউজে প্রয়াত শরীফ সালামের কন্যার স্মৃতিচারণ

মোহাম্মদ আলী বোখারী 

সম্প্রতি কানাডার জাতীয় সম্প্রচার মাধ্যম ‘গ্লোবাল নিউজ’ অনলাইনে প্রানঘাতী করোনায় নিহত মাতা, পিতামহ, আদিবাসী পৌঢ়, ব্যবসায়ী, অভিবাসী ও কমিউনিটি প্রবক্তাদের প্রিয়জনদের কাছ থেকে তাদের মর্মব্যাথা জেনেছে। সেখানে করোনা মহামারির সূচনালগ্নে সংক্রমিত বাঙালি অধ্যুষিত ডেনফোর্থ এলাকার সকলের অতি পরিচিত সজ্জন, এস এম আবদুস সালামের কন্যা শারমিন শরীফ তার পিতার স্মৃতি রোমন্থন করেছেন। এখানে গ্লোবাল নিউজের মেগান কলিকে ‘করোনাভাইরাস টুক দেয়ার লাইভস’ নিবন্ধে দেয়া তার মর্মস্পর্শী স্মৃতিচারণটি অনুদিত হলো-

আমার বাবা প্রকৃতির এক অমিততেজ মানুষ ছিলেন। তিনি আমিসহ মা, আমার ভাই ও তার দৌহিত্রদের কাছাকাছি সব সময় থেকেছেন। তার সুপুুরুষ ব্যক্তিত্ব তাকে কমিউনিটির সঙ্গে একনিষ্ঠ করেছিল। তার ৬৬ বছরের ক্ষুদ্র জীবনে তিনি অনেক কিছুই করে গেছেন। বাংলাদেশে তিনি মুক্তিযোদ্ধা, আইনজীবী, মুক্ত সাংবাদিক এবং জাতীয় পর্যায়ের রাজনীতিতে অবদান রেখেছেন। কানাডায় অভিবাসী হয়েও আইনি পেশায় ছিলেন। তিনি মানবাধিকার ও সামাজিক সমতার ক্ষেত্রে নীতির প্রশ্নে ছিলেন অবিচল ও আপোসহীন। যদি এক কথায় বাবা সম্পর্কে বলতে হয়, তবে মানুষের জন্য তার ছিল অগাধ ভালবাসা। মতপার্থক্য এমনকী প্রত্যাশার কিছু নেই জেনেও তিনি সহযোগিতার হাতটি সব সময় বাড়িয়ে দিতেন। তিনি কমিউনিটির সঙ্গে এতোটাই সম্পৃক্ত ছিলেন যে, করোনা মহামারিতে সব কিছু বন্ধ হয়ে গেলে সংক্রমিত পরিবারের সহযোগিতায় সরাসরি সম্পৃক্ত হয়ে ওঠেন। তারপরও এতোটাই বিনয়ী ছিলেন যে কখনোই নিজের অবদান বা নিজেকে বড় করে তুলে ধরেননি। তার মৃত্যুর পর পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে মানুষ ফোন করে জেনেছেন; অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, আফ্রিকা থেকে সমবেদনা জানিয়েছেন। তিনি যেখানেই যেতেন, সেখানেই তার প্রানবন্ত উপস্থিতি সবার নজর কেড়েছে। তার সঙ্গে কথা বললে, ভালবাসতে ইচ্ছে করতো, তিনি স্মরণীয় হয়ে উঠতেন। কেননা তিনি মানুষকে আন্তরিকভাবে সমাদর করতেন। বাবা চলে যাওয়ায় আমাদের বাড়ীর পরিবেশটি আর কখনোই আগের মতো হয়ে উঠবে না।          

 

Comments