Thu 3rd Dec 2020, 5:19 am

কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ২২ হাজার ছড়িয়েছে

কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ২২ হাজার ছড়িয়েছে

বাংলামেইল ডটকম ডেস্ক

সম্প্রতি কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ২২ হাজার ছড়িয়েছে। মৃত্যুবরণ করেছেন দশ হাজার ১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১লাখ ৮৬ হাজার ৪৬৪ জন। কানাডায় তিনটি প্রধান অন্টারিও, ব্রিটিশ কলাম্বিয়া এবং আলবার্টা প্রদেশসহ অন্যান্য প্রদেশেও প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কানাডায় তিনটি প্রধান অন্টারিও, ব্রিটিশ কলাম্বিয়া এবং আলবার্টা প্রদেশসহ অন্যান্য প্রদেশেও প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর প্রেক্ষিতে অন্টারিও প্রদেশের তিনটি প্রধান অঞ্চল টরন্টো, অটোয়া এবং পিল রিজিওনের জন্য সীমাবদ্ধতা জোরদার করা হয়েছে। শনিবার ২৮ দিনের জন্য কার্যকর হওয়া পদক্ষেপগুলির মধ্যে রেস্তোরাঁ ও বারগুলির ভেতরে খাওয়া দাওয়া নিষিদ্ধ করা এবং জিম, সিনেমা থিয়েটার এবং ক্যাসিনো বন্ধ করা হয়েছে। প্রদেশগুলোর নীতি নির্ধারকরা কার্যকর পদক্ষেপের পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মুখে মাস্ক ব্যবহার করারও আহ্বান জানিয়েছেন। অন্যদিকে আলবার্টায় সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ১৪৪০ জন নতুন করোনা শনাক্ত হওয়ার পরে কোভিড-১৯-এর বিস্তার হ্রাস করার প্রয়াসে সামাজিক জমায়েতের জন্য বাধ্যতামূলকভাবে ১৫ -ব্যক্তির সীমা চালু করেছে। উল্লেখ্য, আলবার্টার ক্যালগারি এবং এডমন্টন উভয় শহরের ক্ষেত্রেই করোনা পজিটিভের হার এখন চার শতাংশের উপরে। 

অন্যদিকে, টরন্টো সিটির শীর্ষ চিকিৎসক আইলিন ডি ভিলা সতর্ক করে বলেছেন, টরন্টোতে মহামারির প্রথম ধাপের সংক্রমণের হারকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে টরন্টোতে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাবে। তিনি হুঁশিয়ারি দেন ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ না করলে এই শীতে পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে।  তিনি বলেন, টরন্টোতে কোভিড-১৯-এর বিস্তার সীমিত রাখার বিষয়টি সিটির বাসিন্দাদের যথাযথ সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে। ভাইরাসটি একজন থেকে অন্যজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে তাই যতটা সম্ভব নিজেদের মধ্যে শারীরিক যোগাযোগ সীমিত রাখার আহ্বান জানান তিনি। রবিবার অন্টারিও একদিনে রেকর্ড সংখ্যক ১ হাজার ৪২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর আইলিন ডি ভিলা এমন মন্তব্য করলেন। 

Comments