Sat 28th Nov 2020, 2:24 am

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় ২৭ অক্টোবর

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায় ২৭ অক্টোবর

বাংলামেইল ডটকম ডেস্ক

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির রায়ের তারিখ ঘোষণা করেছেন আদালত। আগামী ২৭ অক্টোবর রায়ের দিন ধার্য করেছেন বরগুনা জেলা শিশু আদালতের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান। রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হওয়ার পর এ আদেশ দেন আদালত। আদালত সূত্রে জানা গেছে, রিফাত হত্যা মামলার অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ আসামির বিরুদ্ধে ৭৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হওয়ার পর সকল আসামির পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা। বুধবার আদালতে উপস্থাপিত রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি খণ্ডন শেষে এ রায়ের দিন ধার্য করেন আদালত।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বরগুনার শিশু আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল বলেন, পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী আজ এই মামলার যুক্তিতর্কের অবশিষ্ট অংশ আদালতে উপস্থাপন করা হয়।

এরপর যুক্তিতর্ক শেষ হলে আদালত আগামী ২৭ অক্টোবর আলোচিত হত্যা মামলার রায়ের দিন ধার্য করেন আদালত। 

এদিকে মামলার ধার্য তারিখ থাকায় সকাল ৯টার দিকে আদালতে হাজির হন এ মামলায় জামিনে থাকা ৮ অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামি। এরপর কড়া নিরাপত্তায় আদালতে হাজির করা হয় এ মামলার কারাগারের শিশু ওয়ার্ডে থাকা  ছয় আসামিকেও। পুলিশি কড়া নিরাপত্তা আদালত হাজির করা হয় তাদের।

সকাল থেকেই আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। আদালতে আসা সকল বিচারপ্রার্থীদের তল্লাশি করে ঢোকানো হয় আদালতে। 

চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি বরগুনার শিশু বিচারক মো. হাফিজুর রহমান ১৪ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। ১৩ জানুয়ারি অপ্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়।

২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শাকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্তবয়স্ক ও অপ্রাপ্তবয়স্ক ২৪ জনের নামে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করে পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন।

গত বছরের ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তার স্ত্রী আয়শার সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এরপর তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর ওই দিন বিকেলে মারা যান রিফাত শরীফ।

পরদিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী  হিসেবে প্রধান সাক্ষী করা হয় আয়শাকে।

এর আগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা করে বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এর মধ্যে নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকাসহ ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত।

Comments