বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ৫:১২ pm

বিস্ময় ব্যাটিংয়ে ধিক্কার জুটল ভারতের: আনন্দবাজার

বিস্ময় ব্যাটিংয়ে ধিক্কার জুটল ভারতের: আনন্দবাজার

বাংলা মেইল ডটকম ডেস্ক

বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের দেওয়া ৩৩৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৩১ রানে পরাজিত হয় ভারত। এই হারের মধ্য দিয়ে এবারের বিশ্বকাপে ইংলিশদের কাছে প্রথম পরাজয়ের স্বাদ পেল ভারত। তবে ভারতের এমন হারের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে তুমুল ঝড়। এদিকে ‘বিস্ময় ব্যাটিংয়ে ধিক্কার জুটল ভারতের’ শিরোনামে রেখে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, ধরা যাক বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল। ৩০ বলে ৬০ করতে হবে। কঠিন, কিন্তু অসম্ভব নয়। ক্রিজে মহেন্দ্র সিং ধোনি। যাকে ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা ‘ফিনিশার’ বলা হয়। সঙ্গী কেদার যাদব। ভারত জিতবে?

এজবাস্টনে যা দেখা গেল, এই অন্তিম প্রশ্নেরও আগে একটা প্রশ্ন এসে গিয়েছে। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি- ধোনি এবং কেদার জেতার চেষ্টা করবেন তো? এক-এক সময় এমনই উদ্ভট দেখাচ্ছিল ধোনি এবং কেদারের ব্যাটিং যে, নিজের গায়েই চিমটি কেটে দেখতে ইচ্ছে করছিল, সত্যিই লাইভ ম্যাচ হচ্ছে তো? নাকি কোনো ম্যাচের শুটিং?

ম্যাচে প্রত্যেক ওভারে যখন দরকার ১২ বা ১৩ রান। তখন তারা খুচরো রান নিয়ে খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন। বড় হিট হবে কি, চেষ্টাই তো নেই। শেষের আধ-ঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস থ্রিলারের মতো হওয়ার কথা ছিল। হয়ে দাঁড়াল ফ্লপ ছবি। হয়তো বলা হবে, নেট রানরেট ঠিক রাখতে সাবধানি ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলেন ধোনিরা। কিন্তু পাঁচ উইকেট হাতে নিয়েও এমন ব্যাটিংয়ের যা ব্যাখ্যাই দেওয়া হোক, ক্রিকেট ভক্তদের কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়া কঠিন।

ধোনি এবং কেদার দু’জনে মিলে ৩১ বল খেললেন। তার মধ্যে ৭টা বলে কোনো রান নেই, কুড়িটা ১ রান, তিনটে ৪ এবং একটা ছক্কার মার। ভারত শুধু বিস্ময়কর ব্যাটিং করে ম্যাচই হারল না এজবাস্টনে, লাখ লাখ ভক্তের হৃদয় থেকেও দূরে সরে গেল। 

ধোনির ব্যাটিং সব চেয়ে অবাক করার মতো। তিনি দলের সিনিয়র ব্যাটসম্যান। কেদারকে তারই পরিচালনা করার কথা। কিন্তু সাউদাম্পটনের ম্যাচের মতোই নিজে খোলসের মধ্যে ঢুকে পড়লেন। সঙ্গীকেও হাত খুলতে উদ্বুদ্ধ করলেন না। শেষ ওভারে গিয়ে যখন জেতার জন্য ভারতের ৪৬ রান দরকার, প্রথম বলে ছয় মারলেন ধোনি। কিন্তু তত ক্ষণে দর্শকদের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গিয়েছে। বিদ্রুপাত্মক ধ্বনি ভেসে আসছে ভারতের দুই ব্যাটসম্যানের দিকে। দ্বিতীয় বলে ধোনি আবার এক রান নিতে অস্বীকার করলেন।

এবার দর্শকদের ক্ষোভ আরও ফেটে পড়ল। রোজ রোজ এই শেষ ওভারের ‘ফিনিশার ফর্মুলা’ যে কাজে দেয় না, বাজারেও যে তা জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে।

বিশ্বকাপে ভারত এখনও টেবলের দু’নম্বরে। কিন্তু হার্দিক পান্ডিয়া এবং ঋষভ পন্থ আউট হওয়ার পরে যে রকম বিনা লড়াইয়ে ধোনি-কেদার আত্মসমর্পণ করলেন, তাতে প্রবল প্রতিক্রিয়া হতে বাধ্য। 

ধোনি ক্রিজে এসে প্রথম বল যেটা পেলেন, সেটা ব্যাট তুলে ছেড়ে দিলেন। যেন বলতে চাইছে, ‘‘অনেক দিন টেস্ট ম্যাচ খেলিনি। আজ এজবাস্টনে খেলব।’’ ৪৭তম ওভারেও ধোনিরা নিলেন পাঁচটা সিঙ্গলস। অবিশ্বাস্য!

রবিবার বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৩৭ রান সংগ্রহ করে ইংল্যান্ড। বিশাল টার্গেটের জবাব দিতে নেমে নির্ধারিত ওভার শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩০৬ রান সংগ্রহ করে ভারত।

Comments