বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ৪:৩৮ pm

আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ

আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ

বাংলা মেইল ডটকম ডেস্ক

ব্যাটিংয়ের দারুণ ফিফটি। এরপর বল হাতেও আগুন ঝরালেন সাকিব আল হাসান। নিলেন ৫ উইকেট। সাকিবের দাপুটে পারফরম্যান্সের কাছে হার মানল আফগানিস্তান। সোমবার সাউদাম্পটনে আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারাল বাংলাদেশ। টস হেরে আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২৬২ রান করেছিল টাইগাররা। জবাবে ৩ ওভার বাকি থাকতেই ২০০ রানে গুটিয়ে গেছে আফগানরা।

বিশ্বকাপের মঞ্চে স্বপ্নের একটা দিন পার করলেন সাকিব আল হাসান। ব্যাটিং দিয়ে শুরু, এরপর বোলিং। একের পর এক গড়ে চললেন মাইলফলক। ব্যাটিংয়ে ৫১ রানের ইনিংসটি খেলার পথে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বকাপে ১ হাজার রান পূরণ করলেন। এরপর বোলিংয়ে দুই উইকেট হতেই অনন্য এক ডাবলের কীর্তি হয়ে যায় তার। বিশ্বকাপে ১ হাজার রান ও ৩০ উইকেটের ডাবলের কীর্তি হয় সাকিবের।

এরপর ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে সাকিবের ৫ উইকেট। তাতেও হয়ে গেল রেকর্ড। যুবরাজ সিংয়ের পর মাত্র দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপের একই ম্যাচে ফিফটি ও ৫ উইকেট শিকার করলেন সাকিব। আর কপিল দেব ও যুবরাজের পর সাকিব মাত্র তৃতীয় ক্রিকেটার, যার বিশ্বকাপের আসরে রয়েছে সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেটের কীর্তি। এমন ম্যাচে ম্যাচসেরার পুরস্কার আর কারো নয়, সাকিবের হাসেই ওঠেছে।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ভালো শুরু পেয়েছিল আফগানিস্তান। অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব ও রহমত শাহ ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন টাইগার শিবিরে। তবে সাকিব আল হাসান ত্রাতা হয়ে এলেন। ১১তম ওভারে আক্রমণে এসেই ফেরালেন রহমত শাহকে।

৪৯ রানে প্রথম উইকেট হারায় আফগানিস্তান। রহমত শাহ ৩৫ বলে ৩ চারে ২৪ রান করে ফেরেন। সাকিবের বলে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ হন তিনি। গুলবাদিন নাইবের সঙ্গে হাসমতউল্লাহ শহিদি যোগ করলেন ৩০ রান। ২১তম ওভারে হাশমতউল্লাকে (১১) ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন মোসাদ্দেক হোসেন।

এরপর গুলবাদিন ও আসগর আফগান জুটি বাঁধেন। তবে এই জুটিতে ২৫ রানের বেশি করতে দেননি সাকিব। ২৯তম ওভারের প্রথম বলেই ৪৭ রান করা গুলবাদিনকে লিটনের হাতে ক্যাচ বানান। এক বলের ব্যবধানে ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ নবীকে। রানের খাতা খোলার আগেই সাকিবের দুর্দান্ত এক বলে বোল্ড হন নবী।

এরপর সাকিব নিজের চতুর্থ শিকার বানান আসগর আফগানকে। ৩৮ বলে ২০ রান করে ফেরেন আফগানদের সাবেক অধিনায়ক। উইকেটরক্ষক ইকরাম আলি রান আউট হলে ফিরলে ১৩২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় আফগানরা।

সাকিবের গল্প লেখা তখনো শেষ হয়নি। ৪৩তম ওভারে নাজিবুল্লাহ জাদরানকে ফিরিয়ে সাকিব পূরণ করলেন ৫ উইকেট। এরপর রশিদ খান ও দৌলত জাদরানকে ফেরান মোস্তাফিজ। আর মুজিব উর রহমানকে ফিরিয়ে আফগান ইনিংস গুটিয়ে দেন সাইফউদ্দিন। সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ৪৯ রানে অপরাজিত ছিলেন।

এর আগে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেঞ্চুরি হাঁকানো মুশফিক এদিন দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৩ রানের ইনিংস খেলেছেন। তার ৮৭ বলের ইনিংসে ছিল ৪টি চার ও ১টি ছক্কা। সাকিব ৬৯ বলে ১ চারে ৫১ রান করেন। বিশ্বকাপের এবারের আসরে ষষ্ঠ ইনিংসে এটি তার পঞ্চম ফিফটি ছোঁয়া ইনিংস। যার দুটিই সেঞ্চুরি।

এ ছাড়া তামিম ইকবাল ৩৬, মোসাদ্দেক হোসেন ৩৫ রান করেন। আফগানিস্তানের পক্ষে সর্বাধিক ৩ উইকেট নিয়েছেন মুজিব উর রহমান। অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব নিয়েছেন ২ উইকেট।

 

 

 

Comments